Monday , 23 October 2017

যে ৫টি লক্ষণ দেখলে বুঝবেন আপনি ভবিষ্যতে প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারবেন

Loading...

জীবনে সুখ ও স্বাচ্ছন্দ্যের জন্য অর্থ প্রায় অপরিহার্য একটি উপাদান বলেই বিবেচিত হতে পারে। আর্থিকভাবে স্বচ্ছল জীবনযাপনের স্বপ্ন কমবেশি সকলের মনেই থাকে। কিন্তু বর্তমান অবস্থায় কোন কোন লক্ষণ দেখে আপনি বুঝবেন যে, ভবিষ্যতে আপনি উচ্চ আয় করতে পারবেন? ‘ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অফ অ্যাপ্লায়েড বি়জনেস অ্যান্ড ইকনমিক রিসার্চ’ চিহ্নিত করছে ৫টি লক্ষণকে, যেগুলো ভবিষ্যতে আপনার আর্থিক স্বচ্ছলতার পূর্বাভাস—

 তাহাজ্জুদ নামাজ আদায়ের সঠিক নিয়ম কি এবং কখন পড়তে হয়? জেনে রাখুন

১. এমন একটি চাকরি যেখানে উচ্চ আয়ের সম্ভাবনা রয়েছে: সব চাকরিতে এক রকম উপার্জনের সম্ভাবনা থাকে না। কোনও কোনও চাকরিতে কোনওভাবেই উচ্চ আয় সম্ভব নয়। আপনি যদি সেরকম কোনও চাকরিতে নিযুক্ত থাকেন, তাহলে পেশা বদল না করলে ভবিষ্যতেও আপনার প্রচুর আয়ের সম্ভাবনা কম। কিন্তু যদি এমন কোনও চাকরিতে নিযুক্ত থাকেন যেখানে উচ্চ আয়ের সম্ভাবনা রয়েছে, সেরকম একটি চাকরিতে নিচু পদে শুরু করলেও কালে কালে উচ্চ পদে আরোহণের সম্ভাবনা রয়েছে। উচ্চ পদের পাশাপাশি রয়েছে মোটা টাকা উপার্জনের সম্ভাবনা থাকে।

২. মোটা মাইনে: আপনি যদি চাকুরিজীবী হন, তাহলে মাইনেই আপনার আয়ের প্রধান, এবং অধিকাংশ ক্ষেত্রে একমাত্র উৎস। কাজেই আপনার বর্তমান বেতন আপনার ভবিষ্যৎ আর্থিক অবস্থার ভিত নির্মাণ করে দেবে। আপনি যদি বর্তমানে মোটা মাইনে পান, তাহলে ভবিষ্যতেও যে আপনি উচ্চ আয় করবেন, এমনটা বলা যেতেই পারে।

Loading...

৩. ঠিকঠাক বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত: উচ্চবিত্ত হতে গেলে শুধু পেশাগত উপার্জন যথেষ্ট না-ও হতে পারে। সেক্ষেত্রে যথাযথ বিনিয়োগের মাধ্যমে মাস মাইনের অতিরিক্তি উপার্জনের পথ আপনাকে প্রশস্ত করতে হবে। কিন্তু বিনিয়োগের সময়ে আপনাকে অত্যন্ত বিবেচক ভূমিকা পালন করতে হবে, এবং ন্যূনতম বিনিয়োগে কীভাবে সর্বাধিক উপার্জন সম্ভব, তা বুঝে নিতে হবে।

৪. দূরদর্শিতা: আপনার আর্থিক চাহিদা চিরকাল একরকম থাকবে না। আপনার ভবিষ্যতকে যদি আর্থিকভাবে সুনিশ্চিৎ করতে চান, তা হলে এখন থেকেই নিজের ভবিষ্যতের আর্থিক চাহিদা সম্পর্কে আপনাকে ওয়াকিবহাল থাকতে হবে। এবং সেই অনুযায়ী আপনাকে পরিকল্পনা করতে হবে।

৫. আগ্রাসী মনোভাব: একধরনের আগ্রাসী মনোভাব জীবনের যে কোনও লক্ষ্যপূরণের জন্য জরুরি। আর্থিক লক্ষ্যপূরণও তার ব্যতিক্রম নয়। কাজেই বিত্তশালী হতে চাইলে আপনাকে আগ্রাসী ও একাগ্র মনোভাব নিয়েই অগ্রসর হতে হবে।

বাই সাইকেল চালিয়ে রাসূল (সঃ) এর রওজায় যেতে চান এই ব্যাক্তি!

Facebook Comments

Leave a Reply